Type to search

গল্প

পারফিউম

আমি তোমার বারান্দার সামনের রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকি। সেই সময়টায় আমার মনে হয় পৃথিবীর যাবতীয় লোক আমায় ভ্রু কুঁচকে দেখছে। তুমি ক্ষনে ক্ষনে উঁকি দিলে আমার মনে হয় একেকটা তীর বোধহয় বুকে এসে বাঁধছে। বারান্দার ওপাশে তোমার খাট, সেই খাটে রোজরাতে এক অন্য পুরুষ তোমাকে জড়িয়ে ধরে। আমি এইপাশে দাড়িয়ে থাকি। পারফিউম! তোমার পারফিউমের গন্ধ আসে।

আমি দাড়িয়ে থাকতে থাকতে একেকটা সিগারেট ধরাই। ধোঁয়াটে দেয়াল দিয়ে নিজেকে ঘীরে ফেলি!তারপর নিস্তব্ধ এক বিশাল রাত। আমি ছটফট করি। আমি কাথা বালিশ আঁকড়ে ধরি। আমার সেন্টু গেঞ্জিতেও তোমার পারফিউমের গন্ধ লেগে থাকে, আমি কোন উপায়ে তোমাকে এড়িয়ে যাবো?

আমি ধূপ জালাই। গাঁজায় লম্বা টান দিই। গোলাপজল ছিটাই। একটা সুগন্ধি তোমার অস্তিত্ব নিয়ে বারবার আমার আশপাশে ঘুরঘুর করে। আমি তোমাকে তাড়াতে পারি না। চিলেকোঠার ঘরে আমি দেয়ালে মাথা ঠুকি। আমি মরে যাচ্ছি! আমি কি করবো? ওহঃ! আমি কি যে করি! যে পারফিউম মস্তিষ্কে গেঁথে দিয়েছো তুমি, রন্দ্রে রন্দ্রে লহিতকনিকা না, জলজ্যান্ত তুমি ঘুরে বেড়াও। একেকটা রাত নামে, আমি নিজেকে ধ্বংস করে ফেলি।

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *