Type to search

গল্প

দ্বিতীয় জন্মের তুমি

পরের জন্মে তুমি একটা কাজ কইরো, বেগুনী পাড়ের শাড়ী পরে হাওড়া ব্রিজের রেলিং ধরে হাঁটবা বিকেলে মাঝেমাঝে। ওই সময়কার পৃথিবীতে শাড়ি একটা বিলুপ্ত পোশাক হইতে পারে। হয়তো তোমারে ক্ষেত আর ব্যাকডেটেড বলবে অনেকে। তাও, তুমি কাজটা করবা- হ্যা?

চশমা পরবা তুমি এখনকার মতো, মোটা মোটা ফ্রেমের। চশমা জিনিষটাও বিলুপ্ত হয়ে ল্যাসিক লেন্স বা নতুন কোন প্রযুক্তি দখল করে নিতে পরে তখনকার পৃথিবী। তাও চশমা তুমি পইরো। তুমি এখন যেরকম হিজাব করো, এরকম করতে পারো চাইলে। যদিও খোলা চুলের তোমাকেও আমার ভালো লাগে। তুমি এখনকার মতো, কপালের বাম পাশের চুল গুলোকে এলোমেলো করে টেনে এনে ডান পাশে রাখবা, আচ্ছা?

তুমি আমি সংসার পাতলে সেটা নিশ্চয়ই ওই সময়কার পৃথিবীতে একটা শান্তির প্রতিক হবে। সংসার নামক এই ঝামেলায় সেই পৃথিবীর কেউ জড়াবে না, তাও আমরা এই জন্মের স্বাদ পূর্ণ করবো। এই জন্মের স্বপ্ন গুলো তুমি ভুলে যাইয়ো না আবার। আমাদের সাজানো যে স্বপ্নগুলো, তুমি বাস্তবায়ন করতে চলছো অন্যকারো সাথে- এইগুলা তুমি মনে রাখবা যেনো!

তুমি চিন্তা কইরো না; বললাম যা যা, তা করলে আমি খুঁজে নিবো তোমাকে নিশ্চয়ই! তারপর আর কোন ভুল করবোনা আমরা। আমরা চক কশে রোজ প্রেম করবো। ক্যালকুলেশন করে প্রতিটা কথা বলবো, পদক্ষেপ নিবে। আমি পরের জন্মে এই জন্মের দেয়াল গুলোকে দেখতে চাইনা। সৃষ্টা বারবার কারো সাথে প্রতারণা করবেনা নিশ্চয়ই; পরের জন্মে তুমি আমারই হবা নিশ্চিত! এই জন্মেই যে ভুলে তোমাকে পাইনি, পরের জন্মে সেই ভুল আমরা করবো না- ক্যামন?

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *