Type to search

সমসাময়িক

জুয়াড়ির আক্ষেপ

ছোটবেলায় বিজয় দিবস উপলক্ষে আমার গ্রামে অনুষ্ঠিত হওয়া এক অনুষ্ঠানে আমি অদ্ভুত হাস্যকর বানানো কিছু খবর বলে থার্ড প্রাইজ পেয়েছিলাম। আজকে এই আমার আপনার দেশে সাম্প্রতিক ঘটে যাওয়া কিছু অদ্ভুত খবর শুনাই- “বিনা বিচারে ২২ বছর সিলেট কারাগারে বন্দি থাকার পর গত পরশু মুক্তির স্বাদ পেলেন ফজলু মিয়া।” এ খবর আমরা কেউই তেমন একটা জানি না, কারন এটা সেভাবে প্রচার করা হয়নি। আমি ফেসবুকে একজন পোষ্ট দেখে পরে নেটে খোঁজ খবর নিয়ে জানলাম।

বুঝতে পারছেন তো ২২ বছর? সেই জন্মের পর থেকে আমার বয়স এখন ১৯ চলছে… ১৯৯৩ সাল থেকে এই ২০১৫ সাল পর্যন্ত একেবারেই বিচার করা ছাড়া ২২ বছর একটা মানুষ জেলে! প্রতিটা বছরে ৩৬৫ দিন, প্রতিটা দিনে ২৪ ঘন্টা, প্রতিটা ঘন্টায় ৬০ মিনিট – প্রশাসনের অবহেলায় একটা মানুষ তার জিবন থেকে কতগুলো মিনিট হারালো? একজন মানুষের গড় আয়ু ৬০ বছর, সেখান থেকে একেবারেই অকারনে আপনার ২২ বছর বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে- কেমন লাগবে? এই মানুষটারও তো একটা সংসার ছিলো, রোজকার সুখ দুঃখের গল্প ছিলো, সন্তানও ছিলো হয়তো। তাকে তার জিবনের সোনালী সময়গুলো কাটাতে হয়েছে জেলে বসে। ১৯৯৩ সালে মানুষিক ভারসাম্যহীনতার নজির দেখিয়ে এ মানুষটারে জেলে ডুকানো হয়। পরশু হাসিখুশি মুখে রাষ্ট্রের পিপি তাকে বরন করতে এসেছেন। হাতে ফুলের তোড়া। হাসি হাসি মুখ করে তারা সরল মানুষটার সাথে ছবি তুলছেন। এ ঘটনার পর কোন আইন বিষয়ক মন্ত্রী উপমন্ত্রী কিংবা পুলিশ প্রশাসন কেউই পদত্যাগ করেননি, কারন লজ্জ্বাবোধ তাদের নেই। কি চমৎকার! ২২ বছর বিনা বিচারে কারাভোগ করিয়ে অতঃপর ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা!

এমপির আঠারো বছরের ভাতিজা গাড়ি মদ খেয়ে গাড়ি রেসিং করে রিকশায় চালক মেরে ফেলার পর পত্রিকায় নিউজ আসলো রিকশা চালক আহত হয়েছে এবং তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্রও দিয়ে দেওয়া হয়েছে। হাসপাতল আহত ব্যাক্তিদের কোন ব্যাক্তিগত তথ্য সংবাদ মাধ্যমকে দেয়নি। আপনাদের উইক পয়েন্ট কোথায় ব্যাক্তিগত তথ্য দিতে? মেডিকেলে ভর্তি পরিক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের প্রতিবাদে ওরা রাস্তায় নামলো, পুলিশ লাঠি চার্জ করে ওদের পাঠালো হাসপাতালে। ওদিকে মজার স্কুলের দুই অদম্য তরুন ও এক তরুনিকে পথশিশুদের পক্ষে কাজ করার অপরাধে আটকে রাখা হয়েছে – প্রায় এক মাস হতে চললো। তারা বনশ্রী তে একটা বাসায় শেল্টার হোম করে অনাথদের আশ্রয় দিতো; তাদের বলা হলো শিশু পাচারকারী। হচ্ছেটা কি? পুরো জাতিই কি ঘোরগ্রস্ত? সবকিছুই কেমন উল্টাপাল্টা, ঘোলমেলে। যা হওয়ার কথা তা না হয়ে হচ্ছে উল্টা। দেশটা আমার আপনার না, দেশটা এমপি মন্ত্রি এবং তাদের আত্নীয় স্বজনের! আমি আপনি আছি, দেখবো এবং কাল নাহয় পরশু হুট করে শিকার হয়ে যাবো। কোন হ্যাজাকবাতি রাখবে না আমার আপনার খবর কারন এমপি বা মন্ত্রি আমার আপনার চাচা না।

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *