Type to search

গল্প

অফিসের ভূত

অফিসের অবিবাহিতা কলিগ রুমানা আমার ডেস্কের সামনে বসে এক বিকেলে যেনো অন্যমনস্ক ভাবেই বলে উঠে, “ভাইয়া! আপনার প্রেমিকাটা তো আর্মী তে গেছে। প্রেম তো আর আগের মতো জমবে না, শুধু শুধু অপেক্ষা করছেন কেন?”

আমি সেদিন জরুরী কাজের কথা বলে অফিস থেকে বেরিয়ে যাই। আমি একজন গোবেচারা টাইপ একাউন্ট অফিসার। সুন্দুরীরা আমার আশেপাশে থাকলেও নিজের স্বাভাবিকতাটা ধরে রাখতে পারিনা। কেমন যেনো জমে যাই। রুমানা এরপর মাঝে মাঝেই আমার ফোনে টেক্সট পাঠায় “ভাইয়া রান্না কি করেছেন? একদিন আমি এসে রান্না করে আপনাকে খাওয়াই?”

আমি কিছু বলিনা। প্রেমিকিটা আমার পাঁচ-সাত দিন আগে ফোনকলের সিরিয়াল দিয়ে রেখে একদিন সুযোগ পায়। আর্মী প্রশিক্ষণের কঠিন নিয়ম। পাঁচ মিনিট সময় পায় কল করার জন্য। অফিসের এক ব্যাস্ত সময়ে আমাকে কল করে বলে, “তোমার কন্ঠ শুনাও তো বাবু” আমি বলি, “বাবু তুমি কেমন আছো?” ঠিক তখনই রিনরিনে কন্ঠে যেনো একটু জোরেই রুমানা আমার ফোনের কাছে মুখ এনে বলে, “ভাইয়া… দেখেছেন আজ বিকেলটা কত সুন্দর! চলেন ঘুরি আসি কোথায়ও… ওহ আপনি ফোনে কথা বলছেন? আচ্ছা বলুন, বলুন!”

আমি ফোনে কথা কি বলবো? লাইন কেটে যায়। আমি পিসির গ্রাফিক্সে দুই শিং ওয়ালা ভূতের ছবি আঁকি। ভূতের নাম রুমানা। যে ভূত আমার গাড়ে চেপে বসেছে। কোন ঝাড়-ফুক দিয়ে আমি এই ভূত নামাবো?

শেয়ার করুন
Previous Article

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *